কক্সবাজারের রামু সেনানিবাসে প্রধানমন্ত্রী সংবিধান-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সেনাবাহিনীকে সদা প্রস্তুত থাকার আহবান

Posted on


image-3075 (1).jpg

স্বাধীনতা, সংবিধান ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ঐক্যবদ্ধ থেকে অভ্যন্তরীণ ও বহিঃবিশ্বের হুমকী মোকাবেলায় সদা প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রামুতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশনের নবগঠিত সদর দপ্তর দুই পদাতিক ব্রিগেডের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহবান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সেনাবাহিনীর অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি প্রতিটি সদস্যের পেশাগত দক্ষতা বাড়াতে কাজ করছে সরকার।এ সময় প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ, চৌকষ ও সুশৃঙ্খল সেনা সদস্যদের দেশের যেকোন দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দেন তিনি।

সশস্ত্রবাহিনীর সদস্যরা উর্ধ্বতন নেতৃত্বের প্রতি আস্থা, পারস্পরিক বিশ্বাস, সহমর্মিতা, ভ্রাতৃত্ববোধ এবং সর্বোপরি শৃঙ্খলা বজায় রেখে নিজ নিজ কর্তব্য পালন করে যাবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

শেখ হাসিনা আশ্বস্থ করেন, সেনাবাহিনীর উন্নয়নে যে রূপরেখা প্রনয়ন করা হয়েছে তা বাস্তবায়নে ও উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে সরকার বদ্ধপরিকর।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী সকাল ১১টা ২০ মিনিটে রামু সেনানিবাসে হেলিপ্যাডে হেলিকপ্টারে পৌছান। প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছালে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোঃ শফিউল হক ও ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান তাকে অভ্যর্থনা জানান। এরপর তিনি রামু সেনানিবাসে ১০ পদাতিক ডিভিশন এর অধীনস্ত ২ পদাতিক ব্রিগেডসহ ৭টি ইউনিটির পতাকা উত্তোলন করেন। পরে সেনাবাহিনীর একটি চৌকষ দল প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্রীয় সালাম প্রদান করেন।

প্রধানমন্ত্রী রামু সেনানিবাসে নির্মানাধীণ বীর নরনী নামে একটি সড়ক, ১০ পদাতিক ডিভিশনের স্মৃতির স্মারক অজেয়, বীরাঙ্গন নামের মাল্টিপারপাস সেড, মাতামহুরি নামের কম্পোজিট ব্যারাকের উদ্বোধন ও চারটি এস এম ব্যারাকের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব:) তারিক আহমদ সিদ্দিকী, মন্ত্রী পরিষদের সদস্যবুন্দ, উচ্চপদস্থ সামরিক কর্মকর্তা সংসদ সদস্যসহ, বেসামারিক অতিথিবৃন্দ ও সকল স্তরের সেনা সদস্য উপস্থিত ছিলেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা পরিষদ প্রশাসক, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। দুপুরের পর প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার ত্যাগ করেন।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s