Benapole

marquee>মসজিদে নববীর কাছে আত্মঘাতী হামলা, নিহত ৪

Posted on Updated on


4133346336004816156.gif

মসজিদে নববীর কাছে আত্মঘাতী হামলা, নিহত ৪

সৌদি আরবের মদিনায় মহানবী (সা.) এর মসজিদ হিসেবে খ্যাত মসজিদে নববীর কাছে আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৪ নিরাপত্তা কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। সোমবার ইফতারের সময় মসজিদের পার্কিং এলাকার প্রধান নিরাপত্তা চৌকিতে এ হামলা হয়।

রয়টার্স জানায, মক্কার কাবা শরীফের পরে মুসলমানদের কাছে সবচেয়ে পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচিত মসজিদে নববীর নিরাপত্তা চৌকির কাছে সন্ধ্যায় একজন আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটান। এ হামলায় আরও ৫ জন আহত হন।

জেদ্দায় যুক্তরাষ্ট্র কনস্যুলেটে হামলাচেষ্টার দিনই মদিনায় এই আত্মঘাতী হামলা হয়। এতে এক আত্মঘাতী নিহত এবং দুজন আহত হন।

20111128074851two_column_ad

 

এর এক ঘণ্টা পর সন্ধ্যায় সৌদি আরবের পূর্বাঞ্চলীয় শহর কাতিফে একটি শিয়া মসজিদ লক্ষ্য করে আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। সেখানে একজনের খণ্ড বিখণ্ড মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা গেছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। ওই মৃতদেহ হামলাকারীর বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

20160612053f957

জঙ্গিগোষ্ঠীর ফোন নম্বর বুঝবেন কীভাবে?

Posted on Updated on


11259390710501569911

জঙ্গিগোষ্ঠীর ফোন নম্বর বুঝবেন কীভাবে?

11259390710501569911

অপরিচিত নম্বর থেকে কল আসে না এমন মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা নেই বললেই চলে। তবে অপরিচিত নম্বর থেকে আসা বিশেষ কিছু কল আপনার জন্য বিপদ ডেকে আনতে পারে। একবার ভুল করে রিসিভ করলে কিংবা কল ব্যাক করলেই চরম বিপদে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। চলুন জেনে নেওয়া যাক সেরকম কিছু বিপদসঙ্কুল নম্বর।

মোবাইল ফোন গ্রাহকদের অনেকেই  +375602605281, +37127913091 +37178565072 +56322553736 +37052529259 +255901130460 এই রকম কিছু নম্বর থেকে মিস্ কল আসার শিকার হয়েছেন। অথবা এমন কিছু নম্বর যার শুরুতে +375 +371 +381 এই code গুলো ছিল।

20111128074851two_column_ad

এই রকমের নম্বর থেকে একটা মিসড কল হলে অথবা কিছুক্ষণ রিং বেজে বন্ধ হয়ে গেলে, আপনি যদি কল ব্যাক করেন তবে বিপদ। আপনার ব্যালেন্স থেকে 15-30$ কেটে নেওয়া হবে, আর তিন সেকেন্ডের মধ্যে আপনার কনট্যাক্ট লিস্টের সম্পূর্ণ কপি তাদের কাছে পৌঁছে যাবে। আপনার ফোনে যদি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ডিটেইলস্ অথবা ক্রেডিট কার্ড ও ডেবিট কার্ডের তথ্য সেভ করা থাকে তবে সেগুলোও তারা কপি করতে সক্ষম হবে।

এবার জেনে নেওয়া যাক এসব ফোন কোন কোন জায়গা থেকে করা হয় ও কোন জঙ্গিগোষ্ঠী করে থাকে। যেমন +375 কোডের ফোন বেলারুশ থেকে করা হয়, +93 কোডের ফোন করা হয় আফগানিস্তান থেকে, +371 কোডের ফোন লাটভিয়া থেকে, +381 কোডের ফোন সার্বিয়া থেকে, +563 কোডের ফোন চিলি থেকে, +370  কোডের ফোন লিথুনিয়া, +255 কোডের ফোন আসে তানজানিয়া থেকে। এই সকল ফোন সাধারণত: ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিরা করে থাকে। তাই সাবধান! ভুল করেও ফোন রিসিভ করবেন না কিংবা কল ব্যাক করবেন না।

এছাড়া আপনার ফোন থেকে কখনও #90 ও #09 প্রেস করবেন না। কোনো নম্বর থেকে ফোন করে আপনাকে প্রলোভনমূলক কোনো কথা বলে যদি #90 ও #09 চাপতে বলা হয়, দয়া করে তা কখনো্ই করবেন না। এতে আপনার ফোনের সিম কার্ড ক্লোনিং করে, আপনার নম্বরের আর একটি সিম কার্ড বানিয়ে নেবে তারা। তারপর আপনার নম্বর ব্যবহার করে জঙ্গিগোষ্ঠীগুলো বিভিন্ন অসামাজিক কাজ করবে, যার বিন্দুমাত্রও আপনি টের পাবেন না।

 

dfg

20160612053f957

লেখকের অন্য চোখ গুলশানে কার কী লাভ হলো?

Posted on Updated on


12941401170500097041.gif

11259390710501569911
গুলশানে কার কী লাভ হলো?

আর কয়েকদিন পরেই খুশির দিন আসছে। বন্ধুদের বলব, ঈদ মোবারক। একটা খোশ মেজাজ ছিল, ভেবেছিলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনের পাঠকের জন্য মজার লেখা লিখব, খুশির দিনে সেই লেখা পড়ে ভালো লাগবে সবার। কিন্তু ভাই, শুক্রবার রাতে ঘুমাতে যাওয়ার সময় যখন খবরটা জানতে পারলাম তখন নিজের কানকেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। শুক্রবার রাতের নামাজ পড়ার

dfg

সময়, যখন মসজিদ থেকে আজান দেওয়া হচ্ছিল সেই সময় যারা একের পর এক খুন করতে পারে তারা কি মানুষ? ঘুম চলে গিয়েছিল। বারবার ঢাকায় ফোন করেছি। অবাক হয়ে জানলাম, আমার যে বন্ধু গেণ্ডারিয়া বা বাংলাবাজার থাকেন; এ ঘটনার কথা তিনিও টিভি দেখে জেনেছেন। দোতলার বারান্দায় গিয়ে দেখেছেন রাস্তাঘাট স্বাভাবিক। একটু পরে তার ফোন এলো মানুষজন রাস্তায় বেরিয়ে এসেছে, গুলশানে ভয়ঙ্কর হত্যালীলা যারা চালিয়েছে তাদের ধিক্কার দিচ্ছে। তারপরই তিনি মহামূল্যবান প্রশ্নটি করলেন, ধিক্কার জানানো ছাড়া আমরা আর কী করতে পারি? কিছুই না। উত্তরে বলেছিলাম, চুপ করে ঘরে বসে না থেকে ধিক্কার জানানোটা যে অত্যন্ত 577392ef546c2 (1)জরুরি কাজ। এ মুহূর্তে আপনি যেমন গুলশানে নেই, আমিও না। কিন্তু ঢাকার বাংলাবাজার আর কলকাতার শ্যামবাজারে থেকেও আমাদের হৃদয় যে রক্তাক্ত হচ্ছে এটা না হলে আমরা কেঁচো বা পিঁপড়া হয়ে যেতাম। ধীরে ধীরে দেখলাম সেই মজার লেখাটা এ মুহূর্তে আমি লিখতেও পারছি না। চোখ বন্ধ করেও কয়েকশ’ মাইল দূরে বসেও গুলশানের রেস্তোরাঁতে নিহত মানুষের মুখগুলো দেখতে পাচ্ছি। যে পুলিশ কর্তারা দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে শহীদ হলেন তাদের সম্মান জানাতে মাথানত করে আছি। এ অবস্থায় মজার গল্প লেখা কি সম্ভব। যত বেলা গড়াচ্ছে তত নানা চিন্তা মাথায় আসছে, এই যে নির্মম হত্যাকাণ্ড হলো, তাতে কার কী লাভ হলো? যারা ওই রেস্তোরাঁকে বেছে নিয়েছিল তারা নিশ্চয়ই জানত চারপাশে চৌত্রিশটি বিদেশি দূতাবাস থাকায় তাদের কর্মীরা ওখানে খেতে আসবেন। হত্যাকাণ্ড চালালে সারা পৃথিবীতে খবরটা প্রচারিত হবে। মনে প্রশ্ন আসছে, সেই খবর প্রচার করে ওদের কী লাভ হলো? ধরা যাক ওখানে যারা খেতে এসেছিল তাদের বন্দী করে সরকারকে বাধ্য করাতে চেয়েছিল ইচ্ছা পূর্ণ করতে। হয়তো দলের কাউকে জেলমুক্ত করতে চেয়েছিল, কিন্তু ওরা নিশ্চয়ই জানত সরকার যদি তেমন প্রস্তাবে রাজি হতো তাহলেও গুলশানের ওই রেস্তোরাঁ থেকে বেরিয়ে গোপন জায়গায় যেতে পারত না। তার আগেই শাস্তি পেতে হতো। তাহলে এই পরিকল্পনা করে ওদের কী লাভ হতো? আমরা জেনেছি ওরা বাংলাদেশের মানুষ। বিশ্বাস করতে না চাইলেও এটা মিথ্যা নয়। এদের বাড়ি কোথায়? প্রচুর অস্ত্র নিয়ে এরা গণহত্যা করবে বলে এসেছিল? অস্ত্রগুলো কোথায় পেল, এই প্রশ্ন করছি না। ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশে চোরাকারবারিরা যে অস্ত্র ব্যবসায় খুব সফল তা এখন দিনের আলোর মতো স্পষ্ট। কিন্তু সেই অস্ত্র ব্যবহার করতে শিক্ষা নিতে হয়। আপনি আমি তো একটা এ কে ফোর্টি সেভেন দেখামাত্র চালাতে পারব না। এরা যখন অস্ত্র চালনা শিখছিল তখন কেউ টের পেল না কেন? সেই সন্ধ্যেবেলায় ওরা অস্ত্রসমেত গুলশানের রেস্তোরাঁতে কীভাবে এসেছিল। মনে রাখতে হবে, এটা দূতাবাসের এলাকা। তাই নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশ জোরদার। সেই নিরাপত্তা প্রহরীদের দেখার অভিজ্ঞতা আমারও হয়েছে। কিন্তু ঘটনার দিন যদি তারা সজাগ থাকতেন তাহলে হত্যাকারীরা রেস্তোরাঁতে পৌঁছাতেই পারত না। চোর পালালে বুদ্ধি বাড়ে, তাই এখন এসব ভাবছি। কিন্তু প্রশ্নটা রয়েই গেল, ঘটনা ঘটিয়ে কার কী লাভ হলো? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, নামাজের সময় যারা খুন করতে পারে তারা কীরকম মুসলমান? অন্ধ জঙ্গিদের কোনো ধর্ম থাকে না। তারা যে কাজ করে তার পেছনে নিজেদের ইচ্ছা থাকে না, মতলববাজ নির্দেশকের নির্দেশ অনুযায়ী করে থাকে, কাউকে স্বর্গ, অথবা হেভেন বা বেহেশত যাওয়ার লোভ দেখিয়ে হত্যা করতে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। কিন্তু এতে কার কী লাভ হয়? নিরীহ যেসব মানুষ নিহত হলেন, তাদের পরিবারে এখন শোকের ঘন ছায়া। যারা হত্যাকারী তাদের পরিবারের মানুষরা ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে পারবে না। আমার দৃঢ় বিশ্বাস যারা হত্যা করতে এসে নিহত হয়েছেন তারা যদি পরে দৃশ্যগুলো দেখতে পেত তাহলে নিজেদের উন্মাদ ছাড়া অন্য কিছু ভাবত না। দেখতে দেখতে দিনের পরে দিন চলে যাবে। পদ্মা মেঘনায় প্রচুর জল বয়ে যাবে। ক্ষত শুকিয়ে যাওয়ার পর যে দাগ থেকে যায় ঠিক তেমনি গুলশান হত্যাকাণ্ডের দুঃসহ স্মৃতিও থেকে যাবে। কিন্তু কে উত্তর দেবে, যারা হত্যা করল তাদের কী লাভ হলো? কারও কোনো লাভ হলো না কিন্তু ক্ষতি হলো বাংলাদেশের। আতঙ্কিত হলো ভারতবর্ষ আর লজ্জায় অপমানে কেঁপে উঠল ভালোবাসা।

 

4133346336004816156

 

20160612053f957

 

 

 

01

বাংলাদেশ সফরে নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন মরগান

Posted on Updated on


gp.gif

4133346336004816156

বাংলাদেশ সফরে নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন মরগান

গুলশানের একটি রেস্টুরেন্টে সন্ত্রাসী হামলার পর বাংলাদেশ সফর নিয়ে নতুন করে ভাবার কথা জানিয়েছিল ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড। এবার দেশটির ওয়ানডে দলের অধিনায়ক ইয়্যুন মরগান সফরে দলের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। খবর ইএসপিএন ক্রিকইনফোর।

দুটি টেস্ট ও তিনটি ওয়ানডে খেলতে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে আসার কথা রয়েছে ইংলিশদের।

12941401170500097041

এ প্রসঙ্গে মরগান বলেন, “আমি মনে করি এই মুহূর্তে বড় শঙ্কা রয়েছে। আমরা সবসময়ই বড় সিদ্ধান্তগুলো ইসিবির হাতে ছেড়ে দিয়েছি। তারা প্রতিবেদন লিখে, কাউকে পরিস্থিতি দেখতে পাঠায় তা নিরাপদ কিনা এবং এরপর খেলোয়াড়রা এ নিয়ে সন্তুষ্ট বা অসন্তুষ্ট কিনা দেখে। কিন্তু এ মুহূর্তে এটা বড় শঙ্কার বিষয়।”

নিরপত্তা সন্তোষজনক না হলে যদি সফরটি বাংলাদেশের বাইরে নিরপেক্ষ কোনো ভেন্যুতে সরিয়ে নেওয়া হয়, সেক্ষেত্রে মরগানের মত, “আমি মনে করি, এটা সম্ভব হতে পারে।”

11259390710501569911

ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) মশিউর রহমান এ তথ্য দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, তদন্তের স্বার্থে পুলিশ ওই রেস্তোরাঁটি ঘিরে রেখেছে। ওই রেস্তোরাঁয় এখন কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

fff.gif